আমরা যারা লিফট মার্কেটিং এর সাথে জড়িত তারা ব্র্যান্ড ও ক্লোন শব্ধটির সাথে ব্যাপকভাবে পরিচিত । সাধারনত প্রায় সবাই ব্র্যান্ড লিফট মানেই ভাল মানের লিফট হিসাবে মনে করে এবং ক্লোন লিফটকে খারাপ মানের মনে করে । এবার আমরা জানার চেষ্টা করব শব্দ দুটির প্রকৃত অর্থই বা কি এবং আদতে আমরা কি বুঝি?

ইংরেজি শব্দ Brand যার বাংলা অর্থ হচ্ছে যথাক্রমে দাগ, চিহ্ন, নিশানা, ছেকাদেওয়া দাগ, নির্দিষ্ট ব্যবসায়িক ছাপ, মার্কা দেত্তয়া ইত্যাদি ইত্যাদি…. সহজ ভাষায় Brand হচ্ছে একটা কোম্পানীর নাম বা লোগো সেটা ভাল বা খারাপ উভয় পন্যর জন্য প্রযোজ্য সুতারাং একটি কোম্পানী যদি তার প্রডাক্ট ও সার্ভিস দিয়ে সুনাম অর্জন করতে পারে তবে অামরা তাকে ভাল ব্র্যান্ড কোম্পানী হিসাবে বলতে পারি এবং যদি কোন কোম্পানী খারাপ পন্য ও বাজে সার্ভিস প্রদান করে তবে আমরা তাকে খারাপ ব্র্যান্ড কোম্পানি বলতে পারি।

ইংরেজি শব্দ Clone ক্লোন হল কোন জীব বা কোষ বা বৃহৎ জৈব অণুর হুবুহু নকল। কোন জীবের একটি দেহকোষ হতে হুবুহু ঔ জীবটিকে পুনরায় তৈরি করার পদ্ধতি ক্লোনিং নামে বিখ্যাত। সহজ ভাষায় বললে ক্লোনিং হলো অতি অত্যাধুনিক একটি প্রযুক্তি যার মাধ্যমে একটা প্রাণীর ক্রোমোজোম বা ডিএনএ (কোষের নিউক্লিয়াসে অবস্থিত এক বিশেষ ধরনের জৈব অ্যাসিড যা একটি জীবের জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত সবকিছু নিয়ন্ত্রন করে –জন্ম, মৃত্যু, চেহারা, আকার-আকৃতি, আচার ব্যবহার, বেড়ে উঠা ইত্যাদি) ব্যবহার করে হুবহু সেই প্রাণীর অনুরূপ আরেকটি প্রাণী করা হয় – যা জেনেটিক এবং ফিনোটাইপিক উভয় দিক থেকেই অনুরূপ হবে। সোজা কথায় ক্লোনিং হল কোন জিনগত ভাবে কোন কিছুর হুবহু প্রতিলিপি তৈরি করা। প্রডাক্টের ক্ষেত্রে কোন একটা ভালমানের পন্যকে অনুকরন করে হুবুহু পন্য তৈরী করলে সেটাকে ক্লোন পন্য বলে।

একটা ভাল মানের কোম্পানী তাদের পন্য বিভিন্ন কারখানাতে তৈরী করলেও তারা সবসময় তাদের লোগো বা নাম ব্যবহার করে থাকে যারফলে সাধারন ক্রেতা মনেপ্রানে বিশ্বাস করে যে, সবকিছু সেই কোম্পানীই তৈরী করেছে। অনেকেই লিফটের ভিতরে মিৎসুবিসি, সিন্ডলার, টোসিবা, হিটাসি, ওটিস, হুন্দাই সহ নানান বিক্ষাত ব্র্যার্ন্ডের লোগে দেখে ভাবে যে তারা সকল পন্যই নিজেরা তৈরি করে থাকে। কিন্তু প্রকৃত সত্য ভিন্ন সম্প্রতি চায়না, গ্রীস, ইতালি ও তার্কিতে অবস্থিত বেশ কিছু নামি দামি এলিভেটর ফ্যাক্টরী সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখতে পেলাম যে কোন কোম্পানীই 2০% থেকে 3০% যন্ত্রাংশ তৈরী করে না, তারা সবাই তাদের ডিজাইন অনুযায়ী এবং আন্তর্জাতিক মানদন্ড ঠিক রেখে বিভিন্ন কারখানার মাধ্যমে তাদের পন্য তৈরী করে থাকে তবে কোয়ালিটি কন্টোলের বিষয়ে তারা সবাই খুবই সচেতন থাকে। পৃথিবীর অনেক নামী দামি এলিভেটর কোম্পানীগুলো তাদের মার্কেট ধরে রাখার জন্য এবং পন্যর দাম সহনীয় মাত্রায় রাখার জন্য বিভিন্ন উন্নয়নশীল দেশে অবস্থিত বিভিন্ন কারখানার সাথে ১০ বৎসর বা তার অধিক সময়ের জন্য চুক্তি করে তাদের পন্য উৎপাদন করে থাকে। সব জায়গায় তারা নিজেরাই ফ্যক্টরী করে না তারা ওইএম ফ্যক্টরীর মাধ্যমে তাদের কোয়ালিটি অনুযায়ী প্রডাক্ট তৈরী করে। আমাদের দেশে পোশাক প্রস্তুতকারক শত শত ফ্যাক্টরী আছে যারা বিভিন্ন ক্রেতার অর্ডার অনুযায়ী পোশাক তৈরী করে রপ্তানী করে। দুই একজন বাদে কেউই নিজের ব্র্যার্ন্ডের নামে পোশাক বিক্রয় করেনা । ওয়ালমার্ট বিশ্ববিখ্যাৎ ক্লথ ব্র্যার্ন্ড যাদের কোন ফ্যক্টরী নাই তারা শুধু তাদের ডিজাইন অনুযায়ী ওইএম ফ্যক্টরী থেকে তৈরী করে।

যদি কোন কোম্পানী একই ফ্যাক্টরী থেকে আন্তর্জাতিক মানদন্ড ঠিক রেখে পন্য নিয়ে আসে তবে তা গুনগত মানের দিক থেকে অন্য ব্র্যার্ন্ডের থেকে খুব বেশি খারাপ হওয়ার সুযোগ নাই কারন ওইএম ফ্যাক্টরীগুলো কোয়ালিটির বিষয়ে খুবই সচেতন। পরিশেষে আমি সবসময়ের মত আবারো বলব যে লিফট এর পুরো কোয়ালিটি নির্ভর করে পন্যর মান, প্রপার ইন্সটলেশন এবং প্রপার মেইনটেইনেন্স এর উপর- ধন্যবাদ